শিরোনাম :
স্বাস্থ্যবিধি না মানলে প্রয়োজনে কারাদন্ড দেয়া হবে-জেলা প্রশাসক চকরিয়ায় অবৈধ বসতি গুঁড়িয়ে দিয়ে এক একর সংরক্ষিত বনভূমি উদ্ধার কক্সবাজার সদরের ইসলামাবাদে কারের ধাক্কায় টমটম চালক নিহত পেকুয়ায় রাতে নির্মিত ৩টি অবৈধ স্থাপনা দিনে উচ্ছেদ লকডাউন আর না, সচেতন হোন-সিনিয়র সচিব মো. হেলালুদ্দিন পেকুয়ায় মাস্ক ব্যবহার না করায় ৯ জনকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা কভিড-১৯ প্রণোদনা নিয়ে কক্সবাজারে ব্যাংক কর্মকর্তাদের সাথে সংলাপ শিশু ধর্ষণের দায়ে কুতুবদিয়ার এক ব্যক্তি যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও এক লাখ টাকা অর্থদন্ড দাবি আদায়ে কর্মবিরতিতে কক্সবাজারের স্বাস্থ্য সহকারীরা করোনা প্রতিরোধে কক্সবাজারে ফ্রেন্ডশিপয়ের ‘সারি’ আইসোলেশন ও চিকিৎসা কেন্দ্র চালু
শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১১:১০ পূর্বাহ্ন

ইসলামী ব্যাংকের বিনিয়োগ চলছে আমানতও কমেনি

প্রতিবেদকের নাম::

প্রকাশ: এপ্রিল ২৯, ২০১৮ ৯:৪৮ অপরাহ্ণ | সম্পাদনা: এপ্রিল ২৯, ২০১৮ ১১:২৮ অপরাহ্ণ

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের বিনিয়োগ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। আমানতও কমেনি।
বর্তমান পরিচালনা পর্ষদ দায়িত্বশীল নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছে ব্যাংকটিতে গচ্ছিত আমানত সুরক্ষিত রাখতে। এসব তথ্য জানিয়েছে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ। এ অবস্থায় বিভ্রান্তিকর সংবাদে আতঙ্কিত না হতে গ্রাহকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে পরিচালনা পর্ষদ।
বেসরকারি টেলিভিশন নিউজ২৪ ‘জনতন্ত্র গণতন্ত্র’ অনুষ্ঠানে গতকাল রবিবার আয়োজন করেছিল ‘বাংলাদেশে ইসলামী ব্যাংকিং’ শীর্ষক এক আলোচনার। এতে অংশ নেন ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের পরিচালক ও ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহাবুদ্দিন চুপ্পু, পরিচালক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির এফসিএ, শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য মোজাহিদুল ইসলাম চৌধুরী, ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সামীম মোহাম্মদ আফজাল, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) আবু রেজা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ব্যাংকটির ডিএমডি আবু রেজা জানান, ইসলামী ব্যাংকের আমানত বর্তমানে ৭৭ হাজার কোটি টাকা এবং বিনিয়োগ ৭০ হাজার কোটি টাকা। সোয়া কোটি গ্রাহকের এই ব্যাংকটি ইসলামী শরিয়াহভিত্তিতে পরিচালিত হচ্ছে। দেশের সর্বস্তরের মানুষ ব্যাংকটির সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ইসলামী ব্যাংকের বিনিয়োগ কার্যক্রম বন্ধ হয়নি, চলমান রয়েছে।

তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক শরিয়াহভিত্তিক ব্যাংকের জন্য যে বিনিয়োগ ও আমানত অনুপাত (আইডিআর) নির্ধারণ করে দিয়েছে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই আমরা সেই অনুপাতে নামিয়ে আনতে সক্ষম হব। এর মধ্যবর্তী সময়ের জন্য আইডিআর নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই। ’
ইসলামী ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, ‘ব্যাংকটিতে দীর্ঘদিন ধরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের চাওয়া-পাওয়া উপেক্ষিত ছিল। বিশেষ একটি রাজনৈতিক মতাদর্শের লোকদের সুবিধা দেওয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে স্বপ্ন নিয়ে এ দেশে ইসলামী ব্যাংকিং চালুর উদ্যোগ নিয়েছিলেন আমরা সেই দিকটিকে সামনে রেখেই ইসলামী ব্যাংক পরিচালনার চেষ্টা করছি। এখানে নারী কর্মী ৫ শতাংশেরও কম ছিল। একটি বিশেষ রাজনৈতিক মতাদর্শের লোকদের নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া ছিল। আমরা এখন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় বা যোগ্য রিক্রুটমেন্ট কমিটিকে দিয়ে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া চালাচ্ছি। এখানে মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে যে কোনো ব্যক্তি নিয়োগ পাবেন তা সে পুরষ হোক বা নারী হোক। যে ধর্মের লোক হোক। ’

সম্প্রতি আরাস্তু খানের পদত্যাগের কারণ নিয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ঋণ পাসের জন্য তাঁকে কোনো চাপ দেওয়া হয়নি। ঋণ পাস কেবল চেয়ারম্যান একা করেন না। পর্ষদের সবার সিদ্ধান্তে হয়। আমরা অন্য পরিচালকরা এমন কোনো ঋণ পাসের চাপ সম্পর্কে কিছুই জানি না। তা ছাড়া ২৬ জন কর্মীকে বাদ দেওয়ার কোনো উদ্যোগও নেওয়া হয়নি। সম্প্রতি যে পাঁচজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পদত্যাগ করেছেন তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল। তাঁরা নিজেরাই পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন। আমরা কেবল সেটা গ্রহণ করেছি। ’

শরিয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য মোজাহিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ইসলামী ব্যাংক সুদমুক্তভাবে লেনদেন করে। এখানে কোনো ধরনের সন্দেহজনক তহবিল ঢুকে পড়লে তা আলাদা করে রাখা হয়, যা পরবর্তী সময়ে জনকল্যাণে ব্যয় করা হয়। ব্যাংকের মূল তহবিলের মধ্যে আসে না।

পরিচালক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির এফসিএ বলেন, ‘ইসলামী ব্যাংকে গত ৩৫ বছরে কোনো গ্রাহকের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেনি। ভবিষ্যতেও ঘটবে না। বরং ব্যাংকটিকে আরো ভালোভাবে পরিচালনা করার জন্য সাম্প্রতিককালে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ’

গত বছরের মুনাফার ওপর ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণার কারণ সম্পর্কে এই পরিচালক বলেন, ‘লভ্যাংশ দেওয়া হয় মূলধন থেকে। এর থেকে বেশি লভ্যাংশ দিলে যে পরিমাণ মূলধন বেরিয়ে যেত তাতে ব্যাংকের শেয়ারগ্রহীতাদের স্বার্থ রক্ষা হবে না বলেই এটা করা হয়েছে। ’

২০১১ সাল থেকে ইসলামী ব্যাংকের আমানত, বিনিয়োগ ও মুনাফা পর্যায়ক্রমে বাড়ার তথ্য তুলে ধরে ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সামীম আফজাল বলেন, ‘কিছু টুকটাক ব্যত্যয় থাকতে পারে, কিন্তু শরিয়াহভিত্তিক সব নিয়ম-কানুন মেনে এই ব্যাংকটি চলছে। আমরা চেষ্টা করছি এই ব্যাংকে রাখা জনগণের আমানতের হেফাজত করতে। এখানে বিতর্কিত ইসলামী চিন্তার লোকজন ছিল। এরা সরকারের বিরুদ্ধে নানা ধরনের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। আমরা রাজনৈতিক দিক দিয়ে এই ব্যাংকটিকে একটি ভারসাম্যপূর্ণ জায়গায় আনতে চেষ্টা করছি। ’

কক্সবাজার পোস্ট.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
কক্সবাজার পোস্ট সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
এই জাতীয় আরো খবর::