শিরোনাম ::
উখিয়ায় মাদক প্রতিরোধ ও অপরাধ দমনে কমিউনিটি পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত একসঙ্গে ৪ সন্তান জন্ম দিলেন মহেশখালীর এক গৃহবধূ! বান্দরবানের দুর্গম অঞ্চলে ঝরে পড়া শিশুদের জন্য উদ্বোধন শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের বান্দরবান দুই শতাধিক প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উখিয়ায় পালস’র উদ্যোগে বিশ্ব শান্তি দিবস পালিত সীমান্তে গুলির শব্দ থামছে না উখিয়ায় প্রশাসনের অভিযানে ৩টি ড্রেজার মেশিন ও ২টি বন্দুকসহ অস্ত্র উদ্ধার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আবারো খুন মুক্তি কক্সবাজার-এর উদ্যোগে ব্যবসায়ী ও উপকারভোগীদের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত পালস-এর উদ্যোগে “বর্ণবাদ-শান্তি ও সম্প্রীতির অন্তরায়” বিষয়ক বির্তক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ::
কক্সবাজার পোস্ট ডটকমে আপনাকে স্বাগতম..

আরসা প্রধান আতাউল্লাহর নির্দেশে খুন হন রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ

প্রতিবেদকের নাম:
আপডেট: বৃহস্পতিবার, ১৭ মার্চ, ২০২২

কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং শিবিরে রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহকে খুনের নির্দেশ দিয়েছেন মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) এর
প্রধান আতাউল্লাহ আবু আম্মার জুনুনী। আর হত্যায় অংশ নেন প্রায় ২৫ জন।

এ ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া চারজনের আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে এমন তথ্য উঠে এসেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

এই চার আসামি হলেন- আজিজুল হক, হামিদ হোসেন, নাজিম উদ্দিন ও মো. ইলিয়াস। তারা নিজেদের আরসা সদস্য বলে দাবি করেন এবং মুহিবুল্লাহ হত্যায় অংশ নেন বলে পুলিশকে জানান।

তারা গত বছরের ২৩ অক্টোবর থেকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে কক্সবাজারের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেন।

আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস (এআরএসপিএইচ) এর চেয়ারম্যান মুহিবুল্লাহকে গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং শিবিরে সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে। তার পরিবার এ হত্যার জন্য আরসাকে দায়ী করে আসছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে আসামি মো. ইলিয়াস বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের পক্ষে মুহিবুল্লাহ সচেষ্ট ছিলেন। আরসার অবস্থান প্রত্যাবাসনের বিরুদ্ধে। এছাড়া রোহিঙ্গা শিবিরে মাদক চোরাচালান ও চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে অবস্থানের কারণে মুহিবুল্লাহকে আরসা নেতাদের নির্দেশে খুন করা হয়।

আরেক আসামি আজিজুল হক বলেন, মুহিবুল্লাহ রোহিঙ্গা শিবিরে জনপ্রিয় নেতা হয়ে ওঠেন। তিনি রোহিঙ্গা শিবিরে আরসার কর্মকাণ্ডে বাধা হয়ে দাঁড়ান। আরসার প্রধান আতাউল্লাহর নির্দেশে মুহিবুল্লাহকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে ক্যাম্প-১ এর একটি ঘরে বৈঠক করে পরিকল্পনা চূড়ান্ত করা হয়।

অন্য আসামি হামিদ হোসেন জবানবন্দিতে বলেন, ঘটনার দিন (২৯ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় তারা শিবিরের মোস্তফা কামালের বাসায় জড়ো হন। সেখানে আবদুর রহিমসহ ১২ জনকে মাস্ক পরা অবস্থায় দেখতে পান হামিদ। সবার হাতে ছিল ছোট অস্ত্র।

নাজিম উদ্দিনের জবানবন্দিতে বলা হয়, মুহিবুল্লাহকে পরপর দুটি গুলি করেন জাহিদ হোসেন। ফয়েজ উল্লাহ করেন একটি গুলি। ছমি উদ্দিন করেন আরেকটি। মোট পাঁচটি গুলি করা হয়।

পুলিশ এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। সর্বশেষ ৬ মার্চ গ্রেফতার করা হয় মাওলানা জাকারিয়াকে। তিনি আরসার ওলামা শাখার প্রধান হিসেবে পরিচিত।

মুহিবুল্লাহ হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উখিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী সালাউদ্দিন বলেন, আরসা নেতা আতাউল্লাহর নির্দেশে মুহিবুল্লাহকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়। হত্যাকাণ্ডে প্রায় ২৫ জন অংশগ্রহণ করেন।

তিনি বলেন, আতাউল্লাহ এখানে নেই। তবে হত্যায় জড়িত তার সহযোগীদের কেউ কেউ এখানে আছেন। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

তবে আতাউল্লাহর ভাই মো. শাহ আলীকে গত ১৬ জানুয়ারি রোহিঙ্গা শিবির থেকে অস্ত্র ও মাদকসহ পুলিশ গ্রেফতার করে। তদন্ত কর্মকর্তার দাবি, ভাইয়ের সঙ্গে শাহ আলীর যোগাযোগ নেই।

এদিকে মুহিবুল্লাহর স্ত্রী নাছিমা বেগম বলেন, মূল খুনিরা গ্রেফতার হননি। তাই তিনি ৯ ছেলেমেয়ে নিয়ে আতঙ্কে আছেন।

মুহিবুল্লাহর হত্যাকারী বাকি আসামিদের গ্রেফতারে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান।

তিনি বলেন, নিহত মুহিবুল্লাহর পরিবারের নিরাপত্তার কোনো ঘাটতি যাতে না হয়, সে জন্য পুলিশ সচেষ্ট রয়েছে


আরো খবর: